1. admin@dainikprothomnews.com : admin :
শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৮:২৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনামঃ
সাতক্ষীরায় চায়ের দোকানে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে অর্ধ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাতক্ষীরা সদর থানা পুলিশের অভিযানে ৫ কেজি গাঁজাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক সাতক্ষীরায় শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় আন্তজার্তিক মাতৃভাষা ও জাতীয় শহীদ দিবস পালিত সাতক্ষীরা জোন ট্যুরিস্ট পুলিশের আয়োজনে সুন্দরবন দিবস পালন সাতক্ষীরায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ৫১৫ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ আটক ১ সাতক্ষীরায় বিশ্ব ক্যান্সার দিবস ২০২৪ শীর্ষক র‌্যালি ও আলোচনা সভা সাতক্ষীরায় ডিবি পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৪০ বোতল ফেন্সিডিলসহ আটক ১ বাংলাদেশ থেকে চিকিৎসক-নার্স নেওয়ার ঘোষণা সৌদির শীতের রাতে সাতকানিয়া-লোহাগাড়ায় হঠাৎ বন্যা! মূল্যবৃদ্ধি ও কালো টাকার বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে

লিবিয়ায় প্রেসিডেন্ট পদে লড়তে পারবেন না গাদ্দাফির ছেলে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৭৬ জন দেখেছে

লিবিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রয়াত মুয়াম্মার গাদ্দাফির ছেলে সাইফ আল-ইসলাম আল-গাদ্দাফি (৪৯) বাদ পড়েছেন। দেশটির নির্বাচন কমিশন রাষ্ট্রপতি প্রার্থী হিসেবে তার মনোনয়ন প্রত্যাখ্যান করেছে। বুধবার কমিশনের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

লিবিয়ায় ২৪ ডিসেম্বর রাষ্ট্রপতি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। গাদ্দাফি যুগের শেষের পর থেকে লিবিয়ায় চলমান সংঘাতের অবসানের একটি উপায় হিসেবে এই নির্বাচনকে দেখা হচ্ছে। ১৪ নভেম্বর সাইফ আল-ইসলাম আল-গাদ্দাফি তার মনোনয়নপত্র জমা দেন।

সাইফ আল ইসলামসহ মোট ৯৮ জন প্রার্থী রাষ্ট্রপতি পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এই তালিকায় লিবিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় সামরিক বাহিনীর কমান্ডার খলিফা হাফতার, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী আবদুলহামিদ আল-দিবাহ এবং পার্লামেন্টের স্পিকার আজুলা সালেহ রয়েছেন।

তবে প্রেসিডেন্ট পদের প্রার্থী তালিকা থেকে সাইফ আল ইসলামসহ ২৫ জনের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। তালিকায় রয়েছেন লিবিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী আলি জেইদান ও সাবেক সংসদ সদস্য নুরি আবুসাহমাইন। মার্কিন নাগরিকত্বের কারণে খলিফা হাফতারের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে।

লিবিয়ার নির্বাচন কমিশন বলছে, ফৌজদারি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর সাইফ আল-ইসলাম প্রেসিডেন্ট পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার যোগ্যতা হারিয়েছেন। ২০১৫ সালে, একটি ত্রিপোলি আদালত সাইফ আল-ইসলামকে তার অনুপস্থিতিতে মৃত্যুদণ্ড দেয়। গাদ্দাফির শাসনামলে তার বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ আনা হয়।

২০১১ সালে গণঅভ্যুত্থানের মুখে মুয়াম্মার গাদ্দাফির সরকারের পতন ঘটে। বিদ্রোহীদের হাতে বন্দী হওয়ার পর গাদ্দাফিকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এরপর থেকে দেশের বিভিন্ন মহল একে অপরের বিরুদ্ধে লড়াই করছে। সেই মুহুর্তে সাইফ আল ইসলাম প্রথম পালিয়ে যায়। পরে তাকে গ্রেফতার করে কারাগারে রাখা হয়। পরে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

লিবিয়ার রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকেরা বলছেন, সাইফ আল-ইসলাম তার বাবার শাসনের ইতিবাচক দিকগুলো নিয়ে ভোট দেওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন। যাইহোক, অনেকে মনে করেছিলেন যে সাইফ আল-ইসলাম এবং গাদ্দাফি শাসনের প্রধান নেতাদের পক্ষে নির্বাচনে আরও সমর্থক সংগ্রহ করা কঠিন হবে। কারণ লিবিয়ার অনেক মানুষ এখনো গাদ্দাফির নৃশংস শাসনের কথা মনে রেখেছে।

লিবিয়ার যুদ্ধরত দল এবং আন্তর্জাতিক শক্তির সমর্থন সত্ত্বেও, নতুন সরকার এখনও পদ্ধতির নিয়ম এবং ভোটের সময়সূচী সহ বেশ কয়েকটি বিষয় নিয়ে বিতর্ক করছে। ফলে যথাসময়ে ভোট হবে কিনা তা নিয়ে এখনো সংশয় রয়েছে। শুক্রবার প্যারিসে এক সম্মেলনে বিশ্ব নেতারা একমত হয়েছেন যে যারা লিবিয়ার ভোটে বিঘ্ন ঘটানোর চেষ্টা করবে তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে।

সংবাদ টি শেয়ার করে সহযোগীতা করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2021-2024 দৈনিক প্রথম নিউজ
প্রযুক্তি সহায়তায় রি হোস্ট বিডি