1. admin@dainikprothomnews.com : admin :
শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৭:৫৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনামঃ
সাতক্ষীরার তালায় ধানবোঝাই ট্রাক উল্টে দুইজন নিহত সাতক্ষীরায় মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী, দুর্নীতিগস্থ ও সাম্প্রদায়িকতা সৃষ্টিকারীদের প্রশ্রয় দেওয়া হবে না সাতক্ষীরায় চারটি অস্ত্র, ২৯ রাউন্ড গুলি ও তিনটি ম্যাগাজিন জব্দ করেছে র‌্যাব-৬ সাতক্ষীরায় তেলজাতীয় ফসল উৎপাদনে ৫ কৃষক পুরস্কৃত সাতক্ষীরায় কোন আম কবে পাড়া যাবে, জানালো জেলা প্রশাসন সাতক্ষীরার কলারোয়ায় স্বামীর পুরুষাঙ্গ কেটে স্ত্রীর আত্মহত্যা! বাঁশেরবাদা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন সম্পন্ন সাতক্ষীরার আশাশুনিতে এসএসসি ২০০৮ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের মিলন মেলা অনুষ্ঠিত আজ থেকে ব্যাংক-বীমা-অফিস-আদালত খুলছে ইরানের দাবি লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হেনেছে ক্ষেপণাস্ত্র, লুকাতে চাচ্ছে ইসরায়েল

গোপালগঞ্জে মাদ্রাজী ওলকচুর বাণিজ্যিক ভাবে চাষ করছেন

প্রথম নিউজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ৫ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৮৪ জন দেখেছে

অনেকেই শখের বশে বাড়ির পাশে স্থানীয় জাতের ওলকচু চাষ করেছেন। তবে এবারই প্রথম গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় পুষ্টিকর ও লাভজনক উন্নত মাদ্রাসি জাতের ওলকচু চাষ করা হয়েছে। উচ্চ ফলনশীল এ সবজি বাণিজ্যিকভাবে চাষ করছেন উপজেলার ৭ জন কৃষক। নতুন এ সবজি থেকে তিনগুণ লাভের স্বপ্ন দেখেছেন কৃষকরা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ জামাল উদ্দিন জানান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের সহযোগিতায় উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নের ২৭০ জন কৃষককে উচ্চ ফলনশীল মাদ্রাসি জাতের ওলকচু চাষে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে এবং ওলকচুতে ৭ জন কৃষককে প্রদর্শনী করা হয়েছে।

কৃষকদের মাদ্রাজি ওল কচুর বীজ (৬০ কেজি কন্দ), ২০ কেজি ডিএপি, ২০ কেজি ইউরিয়া, ১৫ কেজি এমওপি, ১ কেজি দস্তা এবং ১৫ কেজি জিপসাম সার দেওয়া হয়। মোট ১৪০ একর জমিতে ৭ কৃষক চাষ করেছেন।

তিনি আরও জানান, মার্চ-এপ্রিল মাসে মাদা (বড় গর্ত) করে মাটির ১ ফুট নিচে কন্দ রোপণ করা হয়। এসব সবজি চাষে তেমন যত্নের প্রয়োজন হয় না। কৃষকরা কঠোর পরিশ্রম করে কম খরচে বেশি লাভ পায়। পতিত জমি ব্যবহারের জন্য এই ওলকচু একটি ভালো ফসল। খরিফ ১ বা আউশ মৌসুমে এই ফসল চাষ করা হয়।

নতুন ফসল চাষে কৃষকরা দারুণ খুশি। কারণ সেখানে প্রচুর ফলন হয়েছে এবং বাজারে দামও বেশ ভালো। আগামীতে মোট ১০ বিঘা জমিতে মাদ্রাসি জাতের ওলকচু চাষ করার পরিকল্পনা রয়েছে কৃষি অফিসের।

বার্নি ইউনিয়নের দক্ষিণ বসুরিয়া গ্রামের কৃষক বেল্লাল শেখ বলেন, কৃষি অফিস থেকে প্রদর্শনী পেয়ে ২০ শতক জমিতে নতুন এই কন্দ লাগিয়েছি। ২৫০ গ্রাম ওজনের কন্দ রোপণের পর, ৫ মাস এবং ৬ মাস বয়সে, প্রতিটির ওজন ৪-৫ কেজি পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়। বর্তমানে বাজারে বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৫০-৬০ টাকায়। কম খরচে বেশি লাভের সম্ভাবনার কথা শুনে অন্য কৃষকরাও আমাদের কাছ থেকে কন্দ সংগ্রহে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

কুশলী গ্রামের কৃষক হেলাল উদ্দিন ও দক্ষিণ বসুরিয়া গ্রামের কৃষক আসাদ শেখ বলেন, কৃষি অফিস থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে নতুন সবজি হওয়ায় এই প্রথম মাদ্রাজি জাতের ওলকচু চাষ করেছি। কৃষি অফিস থেকে সার ও বীজ দেওয়ার পর একজন কৃষক ২০ শতাংশ জমিতে খরচ করেন ২-৩ হাজার টাকা।

আর ২০ শতাংশ জমি হবে ৩০-৩৫ মণ ওল কচু। প্রায় ৪০ হাজার টাকায় বিক্রি করতে পারি। এসব সবজি চাষে যত টাকা খরচ হয়েছে তার চেয়ে প্রায় তিনগুণ বেশি লাভ হবে। আশা করছি নতুন এই সবজি চাষে আমরা সুফল দেখতে পাব।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা রাকিবুল ইসলাম জানান, ওলকচু একটি লাভজনক কন্দ জাতীয় সবজি। বাণিজ্যিকভাবে ওলকচু চাষ করে লাভ করা সম্ভব। তাই মাদ্রাজি জাতের ওলকচু চাষে কৃষকদের উৎসাহিত ও পরামর্শ দিচ্ছি। আগামীতে এ ফসলের আবাদ বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।

সংবাদ টি শেয়ার করে সহযোগীতা করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2021-2024 দৈনিক প্রথম নিউজ
প্রযুক্তি সহায়তায় রি হোস্ট বিডি