1. admin@dainikprothomnews.com : admin :
শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৮:০৬ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনামঃ
সাতক্ষীরায় চায়ের দোকানে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে অর্ধ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাতক্ষীরা সদর থানা পুলিশের অভিযানে ৫ কেজি গাঁজাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক সাতক্ষীরায় শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় আন্তজার্তিক মাতৃভাষা ও জাতীয় শহীদ দিবস পালিত সাতক্ষীরা জোন ট্যুরিস্ট পুলিশের আয়োজনে সুন্দরবন দিবস পালন সাতক্ষীরায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ৫১৫ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ আটক ১ সাতক্ষীরায় বিশ্ব ক্যান্সার দিবস ২০২৪ শীর্ষক র‌্যালি ও আলোচনা সভা সাতক্ষীরায় ডিবি পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৪০ বোতল ফেন্সিডিলসহ আটক ১ বাংলাদেশ থেকে চিকিৎসক-নার্স নেওয়ার ঘোষণা সৌদির শীতের রাতে সাতকানিয়া-লোহাগাড়ায় হঠাৎ বন্যা! মূল্যবৃদ্ধি ও কালো টাকার বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে

পাপ থেকে মুক্তি এবং সুস্বাস্থ্য পাবেন যে আমলে

প্রথম নিউজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর, ২০২১
  • ২২০ জন দেখেছে

শারীরিক সুস্থতার জন্য স্বাস্থ্যবিধি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি শুধু মানুষকে সুস্থ রাখে না বরং পাপ থেকেও মুক্তি দেয়। প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হাদিসে এটাই ঘোষণা করেছেন। অল্প সময়ে পাপ থেকে মুক্তি এবং সুস্বাস্থ্য আসবে। স্বল্প এবং সহজ সময়কাল কি?

শারীরিক ও আধ্যাত্মিক বিশুদ্ধতা এবং পরিচ্ছন্নতা মানুষের জন্য খুবই উপকারী। আর তা অর্জিত হয় অজুর মাধ্যমে। ইবাদতের জন্য অজু করতে হবে। যথাযথভাবে অজু করা এবং মহান আল্লাহর জন্য নামাজ পড়ার কারণে গুনাহ থেকে মুক্তি এবং সুস্বাস্থ্য এনে দেবে। এটি হাদীসের একাধিক বর্ণনায় প্রমাণিত।

হাদিসের এই নির্দেশনা বিশ্বব্যাপী মহামারী করোনার প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় উপযুক্ত ভূমিকা পালন করেছে। ইসলামের এই সময়টি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ। অজু ভালো করার মাধ্যমে মানুষ এই ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকতে পারে। হাদিসে, পাক তার প্রিয় নবী ঘোষণা করে-

১। ‘যখনই একজন মুসলমান পূর্ণভাবে অজু করতে দাঁড়ায় এবং সালাত (নামাযে দাঁড়িয়ে) জেনে ও মনোযোগ সহকারে আদায় করে, সে নবজাত শিশুর মতো নির্দোষ হিসেবে প্রার্থনা সম্পন্ন করে।’ (তাবারানি, তারগীব)

২. রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আরও বলেছেন, ‘যখন তোমাদের কেউ অজুর পানি নিয়ে কুলি করে, নাক ধুয়ে পরিষ্কার করে, তখন তার মুখ ও নাকের ভিতরের সমস্ত পাপ ধুয়ে যায়। তারপর যখন সে আল্লাহর হুকুম অনুযায়ী মুখ ধোয়, তখন তার মুখের চারপাশের সমস্ত পাপ পানির সাথে ধুয়ে যায়।

তারপর যখন সে কনুই দিয়ে হাত ধোয়, তখন তার দুই হাতের পাপ পানিতে ধুয়ে যায়। তারপর যখন উভয় পা গোড়ালি পর্যন্ত ধৌত করা হয়, তখন উভয় পায়ের পাপ আঙ্গুলের দ্বারা ধুয়ে যায়।

তারপর যদি সে উঠে দাঁড়ায় এবং যথাযথভাবে নামাজ আদায় করে, আল্লাহর প্রশংসা ও গুণগান করে, এবং তার হৃদয়ে আল্লাহর প্রতি একাগ্রতা সৃষ্টি হয়; কিন্তু সে এইভাবে পাপ থেকে মুক্তি পায়; যেন তার মা সবেমাত্র তার জন্ম দিয়েছেন। ‘(মুসলিম)

৩. হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘যখন একজন ঈমানদার ব্যক্তি অজু করে এবং তার মুখ ধোয়, তখন তার মুখের পাপ পানিতে ধুয়ে যায় । যখন কোন বান্দা হাত ধোয়, তখন তার হাতের পাপ পানিতে ধুয়ে যায়। এইভাবে, যখন অজু শেষ হয়, ওই ব্যক্তি নির্দোষ হয়ে যায়। ‘(তিরমিযি)

এই সময়টি ইবাদতের জন্য ফরজ। আল্লাহ তাআলা কুরআনে মানুষকে এই মর্মে নির্দেশ দিয়েছেন যে:

یٰۤاَیُّهَا الَّذِیۡنَ اٰمَنُوۡۤا اِذَا قُمۡتُمۡ اِلَی الصَّلٰوۃِ فَاغۡسِلُوۡا وُجُوۡهَکُمۡ وَ اَیۡدِیَکُمۡ اِلَی الۡمَرَافِقِ وَ امۡسَحُوۡا بِرُءُوۡسِکُمۡ وَ اَرۡجُلَکُمۡ اِلَی الۡکَعۡبَیۡنِ ؕ وَ اِنۡ کُنۡتُمۡ جُنُبًا فَاطَّهَّرُوۡا ؕ وَ اِنۡ کُنۡتُمۡ مَّرۡضٰۤی اَوۡ عَلٰی سَفَرٍ اَوۡ جَآءَ اَحَدٌ مِّنۡکُمۡ مِّنَ الۡغَآئِطِ اَوۡ لٰمَسۡتُمُ النِّسَآءَ فَلَمۡ تَجِدُوۡا مَآءً فَتَیَمَّمُوۡا صَعِیۡدًا طَیِّبًا فَامۡسَحُوۡا بِوُجُوۡهِکُمۡ وَ اَیۡدِیۡکُمۡ مِّنۡهُ ؕ مَا یُرِیۡدُ اللّٰهُ لِیَجۡعَلَ عَلَیۡکُمۡ مِّنۡ حَرَجٍ وَّ لٰکِنۡ یُّرِیۡدُ لِیُطَهِّرَکُمۡ وَ لِیُتِمَّ نِعۡمَتَهٗ عَلَیۡکُمۡ لَعَلَّکُمۡ تَشۡکُرُوۡنَ
‘হে ঈমানদারগণ! যখন তোমরা নামাজের জন্য দাঁড়ান, তোমাদের পুরো মুখ, উভয় হাত এবং কনুই ধুয়ে নও এবং তোমাদের মাথা এবং পা গোড়ালি পর্যন্ত ধোও। যদি তোমরা নাপাক হন, তাহলে তোমাদের পুরো শরীরকে পবিত্র কর এবং যদি আপনি অসুস্থ, বা নির্বাসনে থাকো অথবা তোমাদের মধ্যে কেউ প্রস্রাব- পায় খানা করে অথবা তোমরা স্ত্রীদের সাথে সহবাস কর, তাহলে তোমরা পানি না পেও তাহলে পবিত্র মাটি দিয়ে তায়াম্মুম করুন । , তোমার মুখ এবং তোমার হাত মাটি দিয়ে মুছে ফেল। আল্লাহ তোমাদেরকে ক্ষতি করতে চান না। কিন্তু তিনি তোমাদেরকে শুদ্ধ করতে চান এবং তোমাদের উপর তাঁর নেয়ামত সম্পূর্ণ করতে চান যাতে তোমরা কৃতজ্ঞাতা প্রকাশ কর। ‘(সুরা আল মায়িদাহ আয়ত:৬)

অতএব, একজন বিশ্বাসী মুসলমানের উচিত যথাযথভাবে অজু করে সর্বদা পবিত্র থাকা। হাদিসের নির্দেশ অনুসারে নিজেকে আধ্যাত্মিকভাবে বিশুদ্ধ এবং পাপহীন এবং শারীরিকভাবে উপযুক্ত করে তোলা।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে নিয়মিত অজুর আমল সঠিকভাবে করার তাওফিক দান করুন। অজু করার পর হাদিসের নির্দেশনা মেনে চলার তাওফিক দিন। শারীরিক সুস্থতা এবং নিরীহ জীবনের জন্য তৌফিক দান করুন। আমীন।

সংবাদ টি শেয়ার করে সহযোগীতা করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2021-2024 দৈনিক প্রথম নিউজ
প্রযুক্তি সহায়তায় রি হোস্ট বিডি