1. admin@dainikprothomnews.com : admin :
শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৮:১৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনামঃ
সাতক্ষীরার তালায় ধানবোঝাই ট্রাক উল্টে দুইজন নিহত সাতক্ষীরায় মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী, দুর্নীতিগস্থ ও সাম্প্রদায়িকতা সৃষ্টিকারীদের প্রশ্রয় দেওয়া হবে না সাতক্ষীরায় চারটি অস্ত্র, ২৯ রাউন্ড গুলি ও তিনটি ম্যাগাজিন জব্দ করেছে র‌্যাব-৬ সাতক্ষীরায় তেলজাতীয় ফসল উৎপাদনে ৫ কৃষক পুরস্কৃত সাতক্ষীরায় কোন আম কবে পাড়া যাবে, জানালো জেলা প্রশাসন সাতক্ষীরার কলারোয়ায় স্বামীর পুরুষাঙ্গ কেটে স্ত্রীর আত্মহত্যা! বাঁশেরবাদা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন সম্পন্ন সাতক্ষীরার আশাশুনিতে এসএসসি ২০০৮ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের মিলন মেলা অনুষ্ঠিত আজ থেকে ব্যাংক-বীমা-অফিস-আদালত খুলছে ইরানের দাবি লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হেনেছে ক্ষেপণাস্ত্র, লুকাতে চাচ্ছে ইসরায়েল

অনুপ্রবেশ; ইইউ-জার্মানির চাপে ৮১৬ বাংলাদেশি দেশে ফিরছেন

প্রথম নিউজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ৭ অক্টোবর, ২০২১
  • ১৬৭ জন দেখেছে

বার্লিনে বাংলাদেশ দূতাবাস জার্মানিতে অবৈধভাবে আটক ৮১৬ বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে, এই মাসের ২৬ তারিখে অভিবাসনে ব্যর্থ প্রায় ৫৫ জন বাংলাদেশির প্রত্যাবাসন চূড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে।

জার্মানিতে রাষ্ট্রদূত মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ জার্মানির চাপে বিভিন্ন কারণে অবৈধ হয়ে যাওয়া এই বাংলাদেশীদের ফেরত পাঠানো উচিত। যাদের ফেরত পাঠানো হবে তাদের সকল তথ্য ইতিমধ্যে দেশের কিছু গোয়েন্দা সংস্থা যাচাই করেছে। প্রত্যাবাসনের দিন, যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমাদের সঙ্গে কমপক্ষে ১৫০ জন বিশেষ জার্মান বাহিনী থাকবে। এদিকে, তারা বার্লিনে বাংলাদেশ দূতাবাস থেকেও ভিসা পেয়েছে বলে তিনি জানান।

দীর্ঘদিন ধরে দেশের বিভিন্ন প্রদেশে আটক অবৈধ বাংলাদেশীদের কারণে দুই দেশের সম্পর্কের অবনতির বিষয়ে রাষ্ট্রদূত বলেন, বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও পারিবারিক বিষয় বিবেচনা করে তাদের ফেরত পাঠানো সম্ভব নয়। তাদের সম্পর্কে সমস্ত তথ্য পাওয়ার পর এই সিদ্ধান্ত নেওয়া ছাড়া আর কোন উপায় ছিল না। এখানে আক্ষরিক অর্থে দ্বিতীয় উপায় নেই।

তিনি আরও বলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী দুই দেশের মধ্যে চলমান সম্পর্ককে আরো শক্তিশালী করতে ইউরোপে বাংলাদেশের সকল রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। আমরা সবাই অবৈধদের ফেরত দিতে সম্মত হয়েছি। বাংলাদেশ এই কঠিন সিদ্ধান্ত না নিলে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) অনেক বাধার সম্মুখীন হবে।

রাষ্ট্রদূত বলেন, আদম  অনেক কষ্টে দালালদের মাধ্যমে অবৈধভাবে ভ্রমণ করছেন না। বরং উচ্চশিক্ষা ও কারিগরি শিক্ষার মাধ্যমে জার্মানিতে নিরাপদ অভিবাসন এখন অনেক সহজ। ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বসবাসকারী অবৈধ বাংলাদেশীদের ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। ইইউর সঙ্গে স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর (এসওপি) চুক্তির আলোকে সরকারকে এটি করতে হবে। অবৈধ বাংলাদেশীদের নাগরিকত্ব নিশ্চিত করতে নির্বাচন কমিশনের এনআইডি শাখা এবং পুলিশের বিশেষ বিভাগের সঙ্গে সমন্বয় করে সরকার এ ব্যাপারে কার্যকর পদক্ষেপ নিয়েছে।

তিনি বলেন, ইউরোপে বসবাসকারী রোহিঙ্গাসহ অনেক বিদেশি বাংলাদেশি নাগরিক বলে নিজেদের দাবি করায় ঢাকার এই বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া উচিত। এছাড়াও, ইইউ বিভিন্ন শর্ত দিচ্ছে।

জানা গেছে, অবৈধ অভিবাসীদের বাংলাদেশে ফেরত না পাঠালে বাংলাদেশ শেনজেন ভিসা সুবিধা পাবে না। তারা সরকারি কর্মকর্তাদের দেওয়া এক বছরের ভিসার মেয়াদও কমিয়ে দেবে। কূটনৈতিক সূত্র নিশ্চিত করেছে যে আরো কিছু জটিল শর্ত যুক্ত করা হয়েছে।

ইইউ বলছে, ইউরোপের সব ২৬ শেনজেন দেশে অবৈধ বাংলাদেশি রয়েছে। এসওপি চুক্তি অনুযায়ী এই অবৈধ অভিবাসীদের বাংলাদেশে ফিরতে হবে। প্রতিষ্ঠানটি এ ব্যাপারে বারবার ঢাকাকে তাগিদ দিয়েছে। ইইউ’র সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখতে সরকার প্রত্যাবাসনকে গুরুত্ব সহকারে নিচ্ছে। জানা গেছে, এ বিষয়ে একাধিক বৈঠক হয়েছে।

যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়া ও আফগানিস্তান ইউরোপীয় ইউনিয়নে অনুপ্রবেশকারীর সংখ্যার দিক থেকে শীর্ষে রয়েছে। বিশেষ করে যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ানরা তাদের জীবন বাঁচাতে ইতালি ও গ্রিস হয়ে ইউরোপে প্রবেশ করছে। ইইউ এর হিসাব অনুযায়ী, অনুপ্রবেশকারীর সংখ্যার দিক থেকে ৩০ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের স্থান ১৬ তম।

ইইউ সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে অভিবাসন ইস্যুতে নতুন চুক্তির আওতায় ইউরোপে অবৈধ বাংলাদেশীদের থাকার সম্ভাবনা বেড়েছে। চুক্তির অধীনে, ইইউ ২০১৯ সালের মধ্যে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার আহ্বান জানিয়েছে।

অবৈধ বাংলাদেশীদের ফিরিয়ে আনার জন্য, ২০১৯ সালের প্রথম দিকে এনআইডি শাখা পরিষেবা সম্পর্কিত এপিআই সংক্রান্ত একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ২০ মে, ২০১৯ তারিখে বৈঠকের কার্যবিবরণী পর্যালোচনা করে জানা গেল যে অবৈধ বাংলাদেশীদের ইউরোপে ফিরিয়ে না আনা হলে সেখানে বসবাসকারী বৈধ বাংলাদেশীরাও সমস্যার সম্মুখীন হবে।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, এসওপির অংশ হিসেবে ইতিমধ্যেই জার্মানি, নরওয়ে এবং গ্রীস থেকে বেশ কিছু অবৈধ বাংলাদেশীকে বিতাড়িত করা হয়েছে। কিন্তু প্রতিবেশী ভারত, পাকিস্তান ও মিয়ানমারের রোহিঙ্গারা সমস্যা তৈরি করছে। তাদের অনেকেই এখন তাদের পাসপোর্ট ছেড়ে দিচ্ছে এবং নিজেদের বাংলাদেশি নাগরিক হিসেবে পরিচয় দিচ্ছে।

এই প্রেক্ষাপটে ইউরোপে অবস্থানরত অবৈধ বাংলাদেশীদের ফিরিয়ে আনার সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) একটি ইন্টারফেস তৈরি করা হয়েছে। এর সাথে, অবৈধ ব্যক্তিদের ডেটা এনআইডি, ডিআইপি এবং বিএমইটি, এপিআই (ডেটা সংস্করণ) এর সংরক্ষিত ডেটার সাথে মিলে যাবে। ফিঙ্গারপ্রিন্টের মাধ্যমে নাগরিকত্ব নির্ধারণের সুযোগ রয়েছে, যা এপিআই এবং এসবি এর ইন্টারফেসের সাথে সিঙ্ক্রোনাইজ করে প্রস্তুত করা হয়।

এক্ষেত্রে ইউরোপীয় ইউনিয়নের এসবি থেকে ডব্লিউএসকিউ ফরমেটে অবৈধ বাংলাদেশীদের আঙুলের ছাপ সংগ্রহ করে নির্বাচন কমিশনে পাঠানো হয়।

তবে জার্মানিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলছেন, বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন সংস্থার নিশ্চয়তা আর ক্লিলিয়ান্সের পর আমরা বাংলাদেশি পরিচয় নিশ্চিত হয়ে তাদের দেশে ফেরত পাঠাচ্ছি। চলতি মাসের একটি ফ্লাইটে ৫৫ জন অবৈধ বাংলাদেশিকে দেশে ফেরত পাঠানো হচ্ছে। অনেকে নিজ উদ্যোগে দেশে ফেরত গেছেন। অন্যদের যাবতীয় প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে পর্যায়ক্রমে পাঠানো হবে বলে জানান তিনি।

ইউরোস্ট্যাটের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০০৮-১৫ সময়ের মধ্যে মোট ৯৩ হাজার ৪৩৫ জন বাংলাদেশি অবৈধভাবে ইউরোপে অনুপ্রবেশ করেন। ২০১৬ সালে সেই সংখ্যা দাঁড়ায় ১০ হাজার ৩৭৫ জন। ২০১৭-২০২০ সালে আরও কিছু অবৈধ বাংলাদেশির অনুপ্রবেশ ঘটেছে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

কমিশন আঙুলের ছাপ যাচাই করে ইইউ ২০১৪ সাল থেকে অভিবাসীদের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। এই দীর্ঘদিনের অভিবাসীরা মূলত মানব পাচারের শিকার। তাদের অধিকাংশই ইতালি হয়ে সমুদ্রপথে ইউরোপে প্রবেশ করেছে। ইইউ মানব পাচার রোধে এই পথ অবরোধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বেশিরভাগ ভ্রমণকারীরা আসে মধ্যপ্রাচ্য, উত্তর আফ্রিকা, আফগানিস্তান, পাকিস্তান এবং বাংলাদেশ থেকে।

লিবিয়ার উপকূল থেকে ইউরোপে ভূমধ্যসাগর অতিক্রম করার আগে বেশ কয়েকজন বাংলাদেশি ডুবে যায়। এরপর অবৈধ বাংলাদেশীদের ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করা হয়। এই কাজে জড়িত প্রতিষ্ঠান বা সংস্থাগুলিও সক্রিয় হয়ে উঠেছে।

এ ব্যাপারে কমিউনিটি নেতা সেলিম ভূঁইয়া বলেন, আসলে জার্মানির অভিবাসন নীতি অন্যান্য ইউরোপীয় দেশের তুলনায় ভালো কিন্তু ভাগ্যের সন্ধানে আসা এই তরুণদের দেশে ফিরতে হবে, অন্যথায় দুই দেশের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্কের অবনতি হবে।

ডুসেলডর্ফে বসবাসকারী বাংলাদেশি ব্যবসায়ী বকুল ভূঁইয়া বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও জার্মানির ক্রমাগত চাপের মুখে বাংলাদেশ সরকার তাদের ফিরিয়ে নিতে বাধ্য হচ্ছে। কিন্তু আমাদের দেশের তরুণদের অবশ্যই আইনি পথে আসার চেষ্টা করতে হবে। তিনি বলেন, কারিগরি শিক্ষার মাধ্যমে বৈধ ভিসা নিয়ে জার্মানিতে বসবাস করা সহজ হবে।

সংবাদ টি শেয়ার করে সহযোগীতা করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2021-2024 দৈনিক প্রথম নিউজ
প্রযুক্তি সহায়তায় রি হোস্ট বিডি