1. admin@dainikprothomnews.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনামঃ
সাতক্ষীরায় শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় আন্তজার্তিক মাতৃভাষা ও জাতীয় শহীদ দিবস পালিত সাতক্ষীরা জোন ট্যুরিস্ট পুলিশের আয়োজনে সুন্দরবন দিবস পালন সাতক্ষীরায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ৫১৫ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ আটক ১ সাতক্ষীরায় বিশ্ব ক্যান্সার দিবস ২০২৪ শীর্ষক র‌্যালি ও আলোচনা সভা সাতক্ষীরায় ডিবি পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৪০ বোতল ফেন্সিডিলসহ আটক ১ বাংলাদেশ থেকে চিকিৎসক-নার্স নেওয়ার ঘোষণা সৌদির শীতের রাতে সাতকানিয়া-লোহাগাড়ায় হঠাৎ বন্যা! মূল্যবৃদ্ধি ও কালো টাকার বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে সিভিল ডিফেন্স ও ভলান্টিয়ার বাড়ানোর আশ্বাস দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উপকারী শাক ৩টি সম্পর্কে জেনে নিন

কবুতর রাখার সহজ উপায় জেনে নিন

প্রথম নিউজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত : সোমবার, ৪ অক্টোবর, ২০২১
  • ২০৮ জন দেখেছে

অনেকে কবুতর পালন করেন শখ হিসেবে। এছাড়া কিছু লোক এখন আমাদের দেশে বাণিজ্যিকভাবে কবুতর পালন করছে। বিশেষ করে কবুতর পালন বেকারত্ব দূরীকরণে বিশাল ভূমিকা পালন করছে। কবুতর রাখার জন্য খুব বেশি জায়গার প্রয়োজন হয় না। অন্যদিকে অল্প সময়ে বাচ্চা পাওয়া যায়, বাজার মূল্যও বেশি। তাই কবুতর পালন করে অর্থ উপার্জন করা খুব সহজ।

এই লাভজনক পাখি পালনের জন্য অতিরিক্ত জ্ঞান এবং শিক্ষার প্রয়োজন হয় না। শুধু একটু যত্ন ও সাবধানতার সাথে কবুতর পালন করে বেকারত্ব দূর করা যায়। কবুতর মাসে দুবার বাচ্চা দেয়। যদি শিশুর বয়স ২১ দিন হয় তবে এটি বিক্রয়ের জন্য উপযুক্ত। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হল কবুতর অন্যান্য পাখির মত অনেক খাবার নষ্ট করে না। বরং বলা যেতে পারে বর্জ্য-বিরোধী পাখি হল কবুতর।

কবুতরের বিভিন্ন জাত রয়েছে। বলা হয় যে পৃথিবীতে কবুতরের ৬০০ প্রজাতি রয়েছে। ‘জালালী কবুতর’ দেশীয় কবুতরের উন্নত জাত। এছাড়াও মাংস উৎপাদনের জন্য উল্লেখযোগ্য প্রজাতি হল হোয়াইট কিং, টেক্সেনা, সিলভার কিং, হামকাচ্চা, কৌড়া, হোমার, গোলা, ডাউকা, লক্ষ্যা এবং পুক্কা।

আমাদের দেশে সিরাজী, ময়ূরপঙ্খী, লাহোরি, ফ্যান্টিল, জ্যাকবিন, মুখী, গিরিবাজ, টেম্পলার, লোটান ইত্যাদি কবুতর শখ হিসেবে বেশি চাষ করা হয়। উড়ার সময় পাহাড়ি কবুতর হোঁচট খায় এবং মানুষের নজর কেড়ে নেয়।

প্রথমে আপনাকে জানতে হবে কিভাবে কবুতরের জন্য একটি ঘর তৈরি করতে হয়। ক্ষতিকারক পশু -পাখি কবুতর খাওয়া থেকে বিরত রাখতে লম্বা ও মজবুত ঘর তৈরি করা প্রয়োজন। হালকা কাঠ, বাঁশ ও বাঁশের চাটাই, শণ, পলিথিন, খড় ইত্যাদি দিয়ে সহজেই কবুতরের ঘর তৈরি করা যায়।

প্রতিটি জোড়া (একজন পুরুষ এবং একজন মহিলা) কবুতরের জন্য এক বর্গফুট রুম থাকতে পারে। একই সময়ে কবুতরের বাড়ি একই জায়গায় বেশ কয়েকটি মেঝে তৈরি করা যেতে পারে। এটি খরচও বাঁচায়। একটি বর্গফুট বাড়ির সামনে ৫ থেকে ৬ ইঞ্চি বারান্দা রাখতে হবে যাতে কবুতর সহজেই উড়ে গিয়ে আশ্রয় নিতে পারে এবং খাবারও খেতে পারে। প্রতিটি বাড়ির দরজা ৪ ইঞ্চি বাই ৪ ইঞ্চি হওয়া উচিত।

ঘর সব সময় পরিষ্কার রাখতে হবে। মাসে একবার ঘর পরিষ্কার করা দরকার। কবুতর বাড়ির চারপাশে খড় বসাতে হবে যাতে বিছানোর সময় এটি সহজে সংগ্রহ করা যায়। ঘর সবসময় শুকনো রাখতে হবে। পায়রা সাধারণত সাগর, ভুট্টা, ধান, চাল, ডাল, কাউন, মটর, খেসারি, সরিষা, গম পছন্দ করে। এই খাবারের জন্য প্রতিটি কবুতর প্রতিদিন ৩৫ থেকে ৬০ গ্রাম খাদ্য প্রয়োজন।

কবুতরের খাবারও বাজারে পাওয়া যায়। যাইহোক, খাবারের ১৫% থেকে ১৬% মাংস হওয়া উচিত। নিয়ম অনুযায়ী, সকালে এবং বিকেলে পর্যাপ্ত পানি সরবরাহসহ প্রতিটি বাড়ির সামনে খাবার রাখা উচিত। বাড়িতে কবুতরের সুষম খাদ্য তৈরি করা যেতে পারে।

প্রতি ১০০ গ্রাম কবুতর খাবারের জন্য, ভাঙ্গা ৩৫ গ্রাম ভাঙা ভুট্টা, ২০ গ্রাম ভাঙ্গা গম, ১৫ গ্রাম সরিষা, ২০ গ্রাম ভাঙ্গা ছোলা, ৫ গ্রাম ভাঙ্গা সয়াবিন, ৪.৫ গ্রাম চালের ভুসি এবং ০.৫ গ্রাম লবণ ব্যবহার করা হয়েছিল ।

কবুতরে রোগের প্রকোপ খুব বেশি নয়। যাইহোক, যেসব রোগ হয় তার মধ্যে গুটিবসন্ত, কলেরা, কক্সিডিওসিস, রক্তাক্ত ডায়রিয়া, কৃমি বেশি আক্রমণ করতে পারে।

কবুতর কোকুন পালকহীন স্থানে ফোসকা সৃষ্টি করে। গলা ব্যথা, খাওয়া যাবে না। রোগের ক্ষেত্রে, সংক্রমিত কবুতরের কোকেনে টিংচার আয়োডিন বা স্যাভলন প্রয়োগ করা যেতে পারে। কবুতরের বয়স যখন চার সপ্তাহ, তখন কবুতর পক্সের টিকা স্তন ও পালকে দেওয়া হয় এবং গুটিবসন্ত প্রতিরোধের জন্য একটি সিরিঞ্জ দেওয়া হয়।

যখন কলেরা একটি রোগ, কবুতরের শরীরের তাপমাত্রা অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যায়। শ্বাসকষ্ট হতে পারে, তৃষ্ণা বেড়ে যেতে পারে, সবুজ বা হলুদ রঙের ঘন ঘন মলত্যাগ হতে পারে, পায়রা ওজন হারাবে। অবশেষে কবুতরটি হঠাৎ মারা গেল। কলেরায় আক্রান্ত কবুতরকে অসুস্থ হওয়ার সাথে সাথে টেরামিসিন ক্যাপসুল বা ইনজেকশন বা কসুমিক্স প্লাস দেওয়া যেতে পারে। ডায়রিয়া বা কক্সিডিওসিসে রক্ত একটি মল। খাবারের অপছন্দ বৃদ্ধি পায় এবং শরীরে দুর্বলতা দেখা যায়। শেষে পালক ঝুলে থাকে।

যদি রোগের ঝুঁকি থাকে বা রোগের সূত্রপাতের সাথে সম্পর্কিত হয়, তাহলে প্যাকেটের নির্দেশনা অনুসারে জলে ই.এস.বি-৩ আ এমবাজিন মেশানো প্রয়োজন। কৃমি হলে কবুতর দুর্বল হয়ে যায় এবং ডায়রিয়া হয়। পানির পিপাসা বাড়ে। রক্তশূন্যতা দেখা যায়। কবুতর যথাযথ যত্ন উপভোগ করার পাশাপাশি আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হতে পারে।

সংবাদ টি শেয়ার করে সহযোগীতা করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2021-2024 দৈনিক প্রথম নিউজ
প্রযুক্তি সহায়তায় রি হোস্ট বিডি